Category: বিজ্ঞপ্তি ফলক

Ctg-Press-Club-Prog.-17.03.13

প্রেস ক্লাবের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধুর জন্ম বার্ষিকীর আলোচনা সভা

Ctg-Press-Club-Prog.-17.03.13

স্বাধীনতার ৪২ বছর পর এদেশের তরুণ প্রজন্ম মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় জেগে উঠেছে

চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের উদ্যোগে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৩ তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবসের আলোচনা সভা গতকাল প্রেস ক্লাব পিএইচপি ভিআইপি লাউঞ্জে অনুষ্ঠিত হয়। প্রেস ক্লাব সভাপতি আলহাজ্ব আলী আব্বাসের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতা নিয়ে ইতিহাস বিকৃতি এ দেশের তরুণসমাজ মেনে নেয়নি। স্বাধীনতার ৪২ বছর পর এদেশে তরুণ প্রজন্ম মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে জেগে উঠেছে। সঠিক ইতিহাসকে কখনো চেপে রাখা যায় না। তা আজকের বাংলাদেশের তরুণ প্রজন্ম দেখিয়ে দিয়েছে। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে এ দেশ স্বাধীন হয়েছে। তার একটি মাত্র ঘোষণার মধ্যদিয়ে এ দেশের আপামর জনসাধারণ মুক্তির সংগ্রামে ঝাঁপিয়ে পড়ে দেশকে মুক্ত করেছে। অথচ জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্যদিয়ে স্বাধীনতার সঠিক ইতিহাস বিকৃত করা হয়েছে। আজকের তরুণ প্রজন্মের যে গণজাগরণ সেটা হচ্ছে ইতিহাস বিকৃতির বিরুদ্ধে, একাত্তরের যুদ্ধাপরাধী ও মানবতাবিরোধী অপরাধীদের বিরুদ্ধে। এ যুদ্ধে তরুণ প্রজন্ম জয়ী হবে। জাতির জনকের স্বপ্নের সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠিত হবে।
প্রেস ক্লাবের অর্থ সম্পাদক শুকলাল দাশের সঞ্চালনায় এ আলোচনা সভায় প্রধান আলোচক ছিলেন চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি আবু সুফিয়ান। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মহসিন চৌধুরী। সভায় অন্যান্যের মধ্যে আলোচনায় অংশ নেন চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়ন (সিইউজে)’র সভাপতি শহীদ উল আলম, প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি আতাউল হাকিম, চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক হেলাল উদ্দিন চৌধুরী, সিইউজে সাধারণ সম্পাদক রিয়াজ হায়দার চৌধুরী, সিইউজে সাবেক সাধারণ সম্পাদক এম নাসিরুল হক ও নির্মল চন্দ্র দাশ ও প্রেস ক্লাবের স্থায়ী সদস্য হাসান ফেরদৌস।
প্রধান আলোচক আবু সুফিয়ান বলেন, আজকে স্বাধীনতার ৪২ বছর পর বাংলাদেশের তরুণ প্রজন্ম বঙ্গবন্ধুর আদর্শে ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় জেগে উঠেছে। যে বঙ্গবন্ধুকে ঘাতকরা হত্যার পর ঐ হত্যাকান্ডের বিচার না হওয়ার জন্য ইনডেমনিটি বিল জারি করেছিল আজ কোটি তরুণের মাঝে সেই বঙ্গবন্ধুর আদর্শ জেগে উঠেছে। আর এতে প্রমাণিত হয়েছে, ইতিহাস কখনো ধামাচাপা দেওয়া যায় না। শতবছর পর হলেও সঠিক ইতিহাস জেগে উঠে, যেমনটি আজ বাংলাদেশের তরুণদের মাঝে জেগে উঠেছে।
সভাপতির বক্তব্যে আলহাজ্ব আলী আব্বাস বলেন, বঙ্গবন্ধু মানে বাংলাদেশ আর বাংলাদেশ মানে বঙ্গবন্ধু। বঙ্গবন্ধুকে বাদ দিয়ে বাংলাদেশের কোনো ইতিহাস রচিত হতে পারে না। বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রের জন্ম দিয়ে বঙ্গবন্ধু জাতির হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছেন। সেই ইতিহাস কখনো মুছে ফেলা যাবে না।
এ সময় আলোচনা সভায় ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্য নূর মোহাম্মদ রফিক, বিএফইউজে সদস্য তপন চক্রবর্তী, সিইউজে সহসভাপতি রতন কান্তি দেবাশীষ, সিইউজে যুগ্ম সম্পাদক মু. শামসুল ইসলাম, স্থায়ী সদস্য মসিউর রেহমান, জামালুদ্দীন ইউছুফ, রোকসারুল ইসলাম, মোহাম্মদ ফারুক, নুর উদ্দিন আহমেদ, সহিদুল ইসলাম সহিদ, আবুল হাসনাত, সবুর শুভ, নিপুল দে প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

Read More

চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের বার্ষিক বিশেষ অধিবেশন সম্পন্ন

Photo-01

Photo-02

১৪ মার্চ চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের বার্ষিক বিশেষ অধিবেশন প্রেস ক্লাব সভাপতি আলহাজ্ব আলী আব্বাসের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে বিপুল সংখ্যক সদস্যদের উপস্থিতিতে ক্লাবের ২০১৩-২০১৪ সালের বার্ষিক কর্মপরিকল্পনা ও প্রস্তাবিত আয়-ব্যয়ের বাজেট পেশ করেন ক্লাবের অর্থ সম্পাদক শুকলাল দাশ। অন্যান্য বছরের ন্যায় এবছরও বার্ষিক কর্ম পরিকল্পনায় সাংবাদিকদের পেশাগত মানোন্নয়নে বিভিন্ন ধরনের কর্মশালা আয়োজন, প্রেস ক্লাব সদস্য ও তাদের পরিবারবর্গের জন্য বিভিন্ন ধরনের বিনোদনমূলক কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। সভায় চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের আয়-ব্যয়ে স্বচ্ছতা আনায় সন্তোষ প্রকাশ করা হয়। বার্ষিক বাজেটে দেশের বর্তমান পরিস্থিতির মুখে ব্যয় সংকোচনেরও পরামর্শ দেন সদস্যগণ। প্রেস ক্লাব ব্যবস্থাপনা কমিটির পক্ষ থেকে সদস্যদের বিনোদন ও পেশাগত মান বৃদ্ধিতে নেওয়া পরিকল্পনা বাস্তবায়নে সার্বিক সহযোগিতা কামনা করা হয়। সভায় বাজেট আলোচনায় সদস্যরা ক্লাবের সুবর্ণজয়ন্তীতে প্রধানমন্ত্রী আসার সম্মতি প্রদান করায় ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন এবং বর্ণিলভাবে সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপনের জন্য ব্যবস্থাপনা কমিটিকে দায়িত্ব অর্পন করেন।

ইঞ্জিনিয়ার আবদুল খালেক মিলনায়তনে বৃহস্পতিবার বেলা ১২ টায় শুরু হওয়া বিশেষ অধিবেশনের শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন প্রেস ক্লাব সাধারণ সম্পাদক মহসিন চৌধুরী। এ সময় মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন ক্লাবের সিনিয়র সহসভাপতি রাশেদ রউফ, সহসভাপতি কাজী আবুল মনসুর, যুগ্ম সম্পাদক মহসীন কাজী, সাংস্কৃতিক সম্পাদক রূপম চক্রবর্তী, ক্রীড়া সম্পাদক নজরুল ইসলাম, গ্রন্থাগার সম্পাদক মো, শহীদুল ইসলাম, আপ্যায়ন ও সমাজসেবা সম্পাদক মো. আইয়ুব আলী, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আলমগীর সবুজ, ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্য আবু জাফর মো. হায়দার, শামসুল হক হায়দরী, নূর মোহাম্মদ রফিক ও মনজুর কাদের মনজু।

প্রস্তাবিত বাজেটের বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনায় অংশ নেন আবু সুফিয়ান, অঞ্জন কুমার সেন, মঈনুদ্দীন কাদেরী শওকত, হেলাল উদ্দিন চৌধুরী, নির্মল চন্দ্র দাশ, কলিম সরওয়ার, সমীর কান্তি বড়–য়া, সালাহউদ্দিন মো. রেজা, নাজিমুদ্দীন শ্যামল, মুহাম্মদ মোরশেদ আলম, বিশ্বজিৎ বড়–য়, মো. ফারুক ও সাইফুল্লাহ চৌধুরী।

সভার শুরুতে দেশের বরেণ্য ব্যক্তি, সাংবাদিক, বুদ্ধিজীবীদের মৃত্যুতে এক মিনিট দাঁড়িয়ে নীরবতা পালন করা হয়। নির্ধারিত আলোচ্যসূচির বিভিন্ন দিক আলোচনার পর সর্বসম্মতভাবে ২০১৩-১৪ সালের প্রস্তাবিত আয়-ব্যয়ের বাজেট এবং কর্মপরিকল্পনা অনুমোদন করা হয়।

Read More

প্রেস ক্লাবে তরুণ শিল্পোদ্যোক্তা রাশেদুল আলম মামুনের মতবিনিময়

P2

P1
চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাব ব্যবস্থাপনা কমিটির সাথে চট্টগ্রাম ব্রাদার্স ইউনিয়ন ক্লাবের ফুটবল কমিটির চেয়ারম্যান ও তরুণ শিল্পোদ্যোক্তা রাশেদুল আলম মামুনের এক মতবিনিময় সভা ৭ মার্চ প্রেস ক্লাব পিএইচপি ভিআইপি লাউঞ্জে ক্লাব সভাপতি আলহাজ্ব আলী আব্বাসের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়েছে। মতবিনিময় সভায় তরুণ শিল্পোদ্যোক্ত রাশেদুল আলম মামুন বলেন, সাংবাদিক সমাজ এবং ব্যবসায়ীরা বর্তমানে এক কঠিন সময় পার করছে। সাংবাদিকরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে প্রকৃত সত্য ঘটনা তুলে ধরতে গিয়ে প্রতিনিয়ত ঝুঁকির মুখে পড়ছে। অপরদিকে একের পর এক হরতাল ও অবরোধের কারণে দেশের ব্যবসায়ীরা শঙ্কিত হয়ে উঠেছে। দেশের কল্যাণে সাংবাদিকদের পেশাগত দায়িত্ব পালনে সর্বোচ্চ নিরাপত্তা দেয়া দরকার।
তিনি আরো বলেন, চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের গৌরবোজ্জ্বল ৫০ বছর পূর্তি অনুষ্ঠান চট্টগ্রামের ইতিহাসে একটি মাইলফলক হয়ে থাকবে। আজকের এই দিনে সাংবাদিকদের সংস্পর্শে আসতে পেরে নিজেকে সম্মানিত ও গৌরব বোধ করছি।

সভাপতি আলহাজ্ব আলী আব্বাস বলেন, তরুণ শিল্পপতি রাশেদুল আলম মামুন ব্যবসার পাশাপাশি দেশের ক্রীড়াঙ্গণে দীর্ঘদিন ধরে অবদান রেখে আসছেন। পাশাপাশি তিনি সাংবাদিকদের কল্যাণে কাজ করার আগ্রহ প্রকাশ করায় আমি তাঁকে ধন্যবাদ জানাই।
যুগ্ম সম্পাদক মহসীন কাজীর পরিচালনায় মতবিনিময় সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন প্রেস ক্লাব সাধারণ সম্পাদক মহসিন চৌধুরী। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি শহীদ উল আলম। এ সময় অতিথিকে প্রেস ক্লাবের সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করেন ক্লাবের সভাপতি আলহাজ্ব আলী আব্বাস। ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান ক্রীড়া সম্পাদক নজরুল ইসলাম। ক্লাবের প্রকাশনা তুলে দেন সাংস্কৃতিক সম্পাদক রূপম চক্রবর্তী।

এ সময় মতবিনিময় সভায় সিনিয়র সহসভাপতি রাশেদ রউফ, সহসভাপতি কাজী আবুল মনসুর, অর্থ সম্পাদক শুকলাল দাশ, গ্রন্থাগার সম্পাদক মো. শহীদুল ইসলাম, সমাজসেবা ও আপ্যায়ন সম্পাদক আইয়ুব আলী, ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্য আবু জাফর মো. হায়দার ও নূর মোহাম্মদ রফিক, স্থায়ী সদস্য নির্মল চন্দ্র দাশ, এম নাসিরুল হক, হাসান ফেরদৌস, বিশ্বজিৎ বড়–য়া, মোহাম্মদ ফারুক, নুর উদ্দিন আহমেদ, রতন কান্তি দেবাশীষ, ম. শামসুল ইসলাম, আবুল হাসনাত, মিন্টু চৌধুরী, নিপুল দে প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন ।

Read More

বিশিষ্ট সাংবাদিক, গবেষক ও ভাষা সৈনিক কাজী জাফরুল ইসলামের ইন্তেকাল

kazi-Zafrul-Islam
01

বিশিষ্ট সাংবাদিক, গবেষক ও ভাষা সৈনিক কাজী জাফরুল ইসলাম ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না লিল্লাহে…রাজেউন)। ২৬ ফেব্রুয়ারি মঙ্গলবার ভোরে নগরীর নিজ বাসভবনে তিনি শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিলো ৭৫ বছর। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, ১ ছেলে, ২ মেয়ে ও বহু গুণগ্রাহী রেখে যান।

মঙ্গলবার সকাল এগারটায় তাঁর দীর্ঘদিনের বিচরণস্থল চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সামনে মরহুমের প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জানাজায় চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব ও চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দ ছাড়াও সর্বস্তরের সাংবাদিকরা অংশ নেন। এতে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এম মনজুর আলম, দৈনিক আজাদী সম্পাদক এম এ মালেক, দৈনিক পূর্বদেশ সম্পাদক ওসমান গণি মনসুর উপস্থিত ছিলেন। চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্যরা ও সাংবাদিক ইউনিয়নের সদস্যরা মরহুমের কফিনে পুস্পস্তবক দিয়ে  শ্রদ্ধা জানান। এরপর মিরসরাইয়ে তাঁর নিজ গ্রামে জানাযা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।

[info]

গণমাধ্যমে কাজী জাফরুল ইসলামের মৃত্যু

বিডিনিউজবাংলানিউজআজাদীসুপ্রভাত বাংলাদেশ ১সুপ্রভাত বাংলাদেশ ২
[/info]

মরহুম কাজী জাফরুল ইসলাম দীর্ঘদিন ধরে দৈনিক আজাদীতে কর্মরত ছিলেন। সর্বশেষ তিনি বার্তা সম্পাদক হিসেবে অবসর গ্রহন করেন। তিনি চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি ছাড়াও চট্টগ্রাম সাংবাদিক হাউজিং সোসাইটি ও সাংবাদিকদের বিভিন্ন সংগঠনে নানা সময়ে নেতৃত্ব দিয়েছেন। বায়ান্নর ভাষা আন্দোলনে তিনি সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহন করেন। ষাট এর দশকে তিনি তুখোড় প্রগতিশীল ছাত্রনেতা ছিলেন। সাংবাদিকতা এবং ইতিহাস বিষয়ক বেশ কয়েকটি গবেষনা গ্রন্থের প্রণেতা এই কৃতি।

কাজী জাফরুল ইসলামের মৃত্যুতে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন, চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়ন, চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন সাংবাদিক ইউনিয়ন, চট্টগ্রাম সাংবাদিক কো-অপারেটিভ হাউজিং সোসাইটি ও  চট্টগ্রাম টিভি জার্নালিস্ট এসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে গভীর শোক প্রকাশ করা হয়। প্রেস ক্লাব সভাপতি আলহাজ্ব আলী আব্বাস ও সাধারণ সম্পাদক মহসিন চৌধুরী, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি ইকবাল সোবহান চৌধুরী, মহাসচিব আবদুল জলিল ভূইয়া, চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি শহীদ উল আলম ও সাধারণ সম্পাদক রিয়াজ হায়দার চৌধুরী, চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি শামসুল হক হায়দরী ও সাধারণ সম্পাদক শাহ নেওয়াজ, চট্টগ্রাম সাংবাদিক কো-অপারেটিভ হাউজিং সোসাইটির সভাপতি নুরুল আমিন ও সাধারণ সম্পাদক আবিদ হোসেন, চট্টগ্রাম টিভি জার্নালিস্ট এসোসিয়েশনের সভাপতি শামসুল হক হায়দরী ও সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী ফরিদ এক বিবৃতিতে শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন।

Read More